ব্রেকিং

x

আনোয়ার কামাল এর গুচ্ছ কবিতা

সোমবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৮ | ১২:২১ অপরাহ্ণ | 985 বার

আনোয়ার কামাল এর গুচ্ছ কবিতা

মেঘের সফেদ জমিন

webnewsdesign.com

ফোঁটা ফোঁটা শিশির বিন্দু ঘাসের ডগায় চুমু দিয়ে যায় মেঘপুঞ্জ ধেয়ে আসে, উড়ে যায় সোনালি ডানার শক্সখচিল পাখনা মেলে দেয় নীলাকাশ হাতছানি দেয় তুলো তুলো মেঘের সফেদ জমিন ফেরি করে, কাশবনে ছেয়ে থাকে নদীর কিনার চরাঞ্চল আর মেঠোপথ। ডাহুক পাখির বাসা জেগে ওঠে পদ্মার চরে পল্লির প্রলেপ লেপ্টে থাকে কিষাণির পাজরে। আবার গড়ে ওঠে বসতি ঝির ঝিরে উত্তরে হাওয়া গা শির শিরে বার্তা নিয়ে আসে। আমিও বেসামাল হই খুঁজে ফিরি চেনা মুখ ধূসর পণ্ডুলিপি; বেদনায় বিদীর্ণ মন সহসা উথলে ওঠে প্রেমময় মেঘের ভেলায়- তুমিও শরিক হও, আমরা দু’জন ভেসে বেড়াই নায়ের গলুই ধরে জলের ছোঁয়া নিয়ে ভেজাই উদোম শরীর।
কৈশোর

কথা ছিল রোদেলা সকালের কাঁচা-মিঠে আমেজে তুমি বকুল ফুল হাতে নিয়ে আসবে। আমি একাকী নীরবে দাঁড়িয়ে থাকবো। আম বাগানে আম কুড়ানোর ছলে, আমরা দুজন মিলিত হবো। নদীর তিরতিরে ঢেউ রোদের পরশ পেয়ে চিক্ চিক্ করে উঠবে। সেই সাথে খরস্রোত ঠেলে ঝাঁক ঝাঁক মা ইলিশ ছুটে আসবে।
আমাদের কথা তো এমনি ছিল। না বলা জমানো কথামালা রঙিন খামে মুড়ে পাঠাবে।

এপিটাফ

আমি কষ্ট কিনতে চেয়েছি
হরেক রকম কষ্ট-
এর কিছু ইথারে ভেসে বেড়ায়
কিছু জমিয়ে রেখেছে নষ্ট রমণীর
ক্ষয়ে যাওয়া যৌবনে।

আমি কষ্ট কিনতে চেয়েছি
মায়ের ভালোবাসার দামে
পিতার ভাঁজপড়া কপালের ঘামে
তার জায়নামাজের তসবি দানায়।

আমি কষ্ট কিনতে চেয়েছি
সুখের নাগাল না পাওয়া মানুষের
প্রেম আর শরীরের নোনা ঘামে।
পরিযায়ী বন্ধু তুমি

পথ অনেক দূর- হাঁটা শেষ হয়নি এখনো
পথে বিছানো নূড়ি থেকে দোয়েলের ঠোঁটে শিষ
আর বাহারি লেজের নাচানাচি
মাছরাঙার ঠোঁটে সুচালো ফলা
কখনো বিদ্ধ করে বয়েসী মাছের শরীর
পরিযায়ী বন্ধু তুমি কী খোঁজ আমার শরীরের ভাঁজে ভাঁজে

আমি তো যত্নে পুষে রাখি হেমন্তের মেঠোপথ-
শীতের কুয়াশা শরীর আর বসন্তের আগমনী বার্তা;
এখানে পাবে না কিছু, যা তুমি খুঁজে ফেরো।

পথ তো অনেক দূর-পরিযায়ী বন্ধু তুমি
পথের সন্ধানে কোন কাননে ফুল ফোটাও!

পাখির মতো ভিসামুক্ত পৃথিবী চাই

মানুষও পাখির মতো ঘুরে ফিরে এখানে-সেখানে যেখানে মন চায়
মানুষও পাখি তবে পাখা নেই, রয়েছে দুখানা হাত, দুখানা পা, মন্দ কি!
তাই নিয়েই দিব্বি উড়ে বেড়াচ্ছি, কাল ঈদ করলাম দেশের বাড়ি তো
আর আজ নাগরিক জীবনের যাতাকলে লাটিমের মতো ঘুরপাক খাচ্ছি।

এ জীবন তো পাখির মতোই! মানুষও ভিন্ন রকমের পাখি-
তবে পাখিদের ঝগড়া-বিবাদ কম আর মানুষের আকাশ সমান
পাহাড় সমান, সমুদ্র সমান বিবাদ নিয়ে বসবাস।

পৃথিবী তো একটাই; মানুষ আর পাখি, পাখি আর মানুষ একাকার
পাখিদের রাজ্যসীমা নেই, নেই সীমারেখা, অবাধে চরে বেড়ায় ভিসামুক্ত।

আমিও পাখির মতো ভিসামুক্ত পৃথিবী চাই, পাখির মতো রাজ্য থেকে রাজ্যে
কালের কলস হয়ে বেড়াতে চাই অবাধে নির্ভাবনায় অনন্ত সময়!
লেখক: কবি, সম্পাদক: এবং মানুষ।

Development by: webnewsdesign.com