ব্রেকিং

x

বালাগঞ্জে ভিটে থেকে উচ্ছেদ হওয়া এক সংখ্যালঘু পরিবারের মানবেতর জীবন যাপন

রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯ | ৮:৪৫ অপরাহ্ণ |

বালাগঞ্জে ভিটে থেকে উচ্ছেদ হওয়া এক সংখ্যালঘু পরিবারের মানবেতর জীবন যাপন

সিলেটের বালাগঞ্জে চরম মানবেতর জীবন যাপন করছে একটি সংখ্যালঘু পরিবার। এই পরিবারকে অমানবিক নির্যাতন, কয়েক দফায় বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও মিথ্যা মামলা দিয়ে ভিটেবাড়ি থেকে বিতারিত করে সম্পত্তি জবর দখল করার অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায় সিলেট জেলার বালাগঞ্জ উপজেলার হুসেনপুর গ্রামের একটি সংখ্যালঘু পরিবারকে উচ্ছেদ করতে চরম নির্যাতন ও মিথ্যা হত্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে আসছিল একই এলাকার আশক আলীর ছেলে প্রভাবশালী আলী হোসেন ও তার পরিবার। ভুক্তভোগী মৃত বিপুল সুত্রধরের পরিবারকে দীর্ঘদিন ধরে অমানবিক নির্যাতন চালিয়ে, বসত বাড়িতে হামলা করে পরিবারটিকে বাড়িছাড়া করেছে আলী হোসেন।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকার সচেতন মহলে চাপা ক্ষোভ ও সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। নির্যাতিত সংখ্যালঘু পরিবারের সুত্রে জানা যায়, অনেককাল ধরে তাদের পূর্বপুরুষদের ভিটে মাটিতে বাস করে আসছিলেন তারা, এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির মধ্যেই এতদিন দিনাতিপাত করার মধ্যেই হঠাৎ একই এলাকার আশক আলীর ছেলে সন্ত্রাস প্রকৃতির ভূমিদস্যু আলী হোসেনের লুলুপ দৃষ্টি তাদের সম্পত্তির উপর পড়ে।

যার জেরে দীর্ঘদিন ধরেই মৃত বিপুল সুত্রধর পরিবারের সম্পত্তি দখল করার নানান অপকৌশল চালিয়ে আসছিলো আলী হোসেন ও তার পরিবার। ভিটে মাটি দখল করতে কয়েক দফায় তাদের বাড়িঘরে হামলা ও ভাংচুর করা হয়েছিলো। একের পর এক মিথ্যে মামলা দিয়ে সংখ্যালঘু পরিবারটিকে চরম হয়রানি অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে ফেলা হয়।

পরিবারটিকে বিতারিত করতে মৃত বিপুল সুত্রধরের ছেলে মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধরের (৩০) বিরুদ্ধে জমি সংক্রান্ত বিভিন্ন মামলা দিয়ে ও প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে তাকে এলাকাছাড়া করে আলী হোসেন। পরে তাদের আরো বেকায়দায় ফেলতে ষড়যন্ত্র করে সর্বশেষ মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধর ও এলাকায় তাদের পক্ষের কিছু লোককে আসামী করে গত ২০ জুন ২০১৭ ইং তারিখে বালাগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে দুবৃত্ত আলী হোসেন।

পরে মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধরের অনুপস্থিতিতেই সিলেট জেলা ও দায়রা জজ আদালত গত ২১ আগস্ট ২০১৯ ইং তারিখে মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধর সহ অন্যান্যদের দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং অন্যান্য শাস্তির রায় ঘোষনা করেন। আদালত মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধরকে পলাতক দেখিয়ে সাজা পরোয়ানাও জারি করেন। পরবর্তীতে রাতের আধাঁরে দলবল নিয়ে বসতবাড়িতে হামলা চালিয়ে বাড়ি ঘর ভাংচুর, লোটপাট ও উক্ত পরিবারের সদস্যদের নির্যাতন করে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয় আলী হোসেন। অতঃপর সম্পত্তি দখল করে বাড়ির ভেতরই একটি মসজিদ নির্মান করে আলী হোসেন ও এলাকার কিছু উগ্র মৌলবাদীরা।

এছাড়া আলী হোসেনের হুমকি ধমকিতে আতংকিত হয়ে ও ছেলের দুশ্চিন্তায় ছেলের যাবজ্জীবন কারাদন্ড রায়ের প্রায় দুইমাসের মধ্যেই গত ২অক্টোবর ২০১৯ ইং তারিখে মৃত্যুঞ্জয় সুত্রধরের বৃদ্ধ পিতা বিপুল সুত্রধর হার্ট এ্যাটাক করে মৃত্যুবরন করেছেন বলেও দাবী ভুক্তভোগী পরিবারের। এলাকায় তারা নিরীহ প্রকৃতির হওয়ায় প্রভাবশালী আলী হোসেনের বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থাই নিতে পারছেন না বলে জানান তারা।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসন কেউই তাদের পাশে এগিয়ে আসছেন না অভিযোগ করে প্রতিবেদকের কাছে আলী হোসেনের চরম নির্যাতনের কথা বলে বর্তমান সময়ে ভিটে মাটি হারিয়ে মহিলা শিশু সহ ছন্নছাড়া মানবেতর জীবন যাপনের বর্ণনা দেন পরিবারের লোকজন।

আলী হোসেনের ভয়ে কোন আত্মীয় স্বজন বা পরিচিতজনরাও তাদের আশ্রয় দিচ্ছে না, এমতাবস্থায় বিভিন্ন পরিত্যক্ত কুটির কিংবা মন্দিরে মন্দিরে প্রাণ সংকটে দুর্বিষহ রাত কাটাচ্ছেন বলেও জানান তারা। এই মানবেতর পরিস্থিতি থেকে দুর্বৃত্ত আলী হোসেনের কবল থেকে সম্পত্তি ও পরিবারকে বাঁচানোর জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে জোর আর্তি জানান নির্মম নির্যাতনের স্বীকার এই সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা।

এই ঘটনা সম্পর্কে বালাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জের কাছে জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ব্যাবস্থা নেওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন। এদিকে এবিষয়ে কথা বলার জন্য অভিযুক্ত আলী হোসেনের সাথে যোগাযোগ করলেও তার কোন সাড়া পাওয়া যায়নি, এবং প্রতিবেদকের সাথে কথা বলতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।

Development by: webnewsdesign.com