ব্রেকিং

x

ক্রয়ের তুলনায় বিক্রি বেড়েছে

বিদেশী বিনিয়োগ কমায় নেতিবাচক প্রভাব পুঁজিবাজারে

সোমবার, ২৮ মে ২০১৮ | ১০:০০ অপরাহ্ণ | 870 বার

বিদেশী বিনিয়োগ কমায় নেতিবাচক প্রভাব পুঁজিবাজারে

গত মাসে ডিএসইতে বিদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের শেয়ার কেনাবেচা আগের মাস মার্চের তুলনায় বেড়েছিল। তবে এ সময় যত টাকার শেয়ার কিনেছেন, বিক্রি করেছেন তার তুলনায় বেশি। তাছাড়া লেনদেন বাড়লেও স্টক এক্সচেঞ্জের মোট লেনদেনে বিদেশিদের অংশ ১ শতাংশ কমে সাড়ে ৪ শতাংশে নেমেছিল।
জানা যায়, শুধু ডিএসইর মাধ্যমে বিদেশি ও প্রবাসীরা মোট ১ হাজার ৩০ কোটি ৭৪ লাখ টাকার শেয়ার কেনাবেচা করেছিলেন। এর মধ্যে কিনেছিলেন ৫০৩ কোটি ৩ লাখ টাকার। বিপরীতে বিক্রি করেছিলেন ৫২৭ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার। অর্থাৎ কেনার তুলনায় ২৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকার শেয়ার বেশি বিক্রি করেছিলেন। কেনা ও বেচা উভয় দিক বিবেচনায় নিয়ে ডিএসইর মোট লেনদেনে তাদের অংশ ছিল ৪ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

webnewsdesign.com

তবে এপ্রিলের তুলনায় মে মাসে এখন পর্যন্ত বিদেশিদের শেয়ার বিক্রির পরিমাণ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বেড়েছে বলে তথ্য মিলেছে। চলতি মাসের প্রথম অর্ধে ডিএসইতে যে পরিমাণ শেয়ার বিক্রি হয়েছে তার ৭ শতাংশই ছিল বিদেশিদের। এ সময় তারা প্রায় ১৭৪ কোটি টাকার শেয়ার কেনার বিপরীতে ২৯৪ কোটি টাকার শেয়ার বিক্রি করেন।
প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর বিভিন্ন শ্রেণির বিনিয়োগকারীদের ধারণ করা শেয়ারের অংশের তথ্য পর্যালোচনায় এমন তথ্য মিলেছে। অন্যান্য মাসের তুলনায় এপ্রিলে তথ্য প্রকাশে অনেক বিলম্ব করেছে স্টক এক্সচেঞ্জটি।

এদিকে, বিদেশিদের এই শেয়ার বিক্রির চাপে বৃহৎ মূলধনী অনেক কোম্পানির শেয়ারদর কমেছে। তার প্রভাবে বাজার সূচকেও বড় পতন হয়। অবশ্য সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে এসে এদের শেয়ার বিক্রির চাপ অনেকটাই কমে এসেছে।

বিদেশি বিনিয়োগকারীরা গত এপ্রিলে ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার বেশি বিক্রি করেছেন। এতে ব্যাংকটির মোট শেয়ার থেকে বিদেশিদের অংশ ২ দশমিক ৩৬ শতাংশ কমে ২৪ শতাংশে নেমেছে। এ ছাড়া গত মাসে বিএসআরএম লিমিটেড, ব্র্যাক ব্যাংক, একমি ল্যাব, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, জিএসপি ফাইন্যান্স, এমজেএল বাংলাদেশ, এবি ব্যাংক ও লংকাবাংলা ফাইন্যান্স থেকে বিদেশিদের শেয়ার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কমেছে।

প্রাপ্ত তথ্য পর্যালোচনায় দেখা গেছে, তালিকাভুক্ত ৩০৩ কোম্পানির মধ্যে ১২১ কোম্পানিতে বিদেশি বা প্রবাসীদের বিনিয়োগ ছিল। এপ্রিলে ২৯ কোম্পানি থেকে কম-বেশি তরার বিনিয়োগ কমিয়েছে। বিপরীতে ২৮ কোম্পানিতে শেয়ার বেড়েছে।

পর্যালোচনায় আরও দেখা গেছে, এপ্রিল মাসে যেসব কোম্পানিতে বিদেশিদের শেয়ার বেড়েছে, তার মধ্যে শীর্ষে ছিল ইফাদ অটোস। কোম্পানিটিতে বিদেশিদের অংশ মোট শেয়ারের ১ শতাংশ বেড়ে পৌনে ৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। এ ছাড়া আইডিএলসি, বেক্সিমকো ফার্মা, সিটি ব্যাংক, সিঙ্গার বাংলাদেশ, গ্লাক্সোস্মিথ ক্লাইন, ঢাকা ডাইং, ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ও প্রাইম ব্যাংকে বিদেশি ও প্রবাসী বাংলাদেশিদের শেয়ারের অংশ কিছুটা বেড়েছে।

শেয়ার বেড়েছে :ইফাদ অটোসের পর গত মাসে সর্বাধিক শেয়ার বেড়েছে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসিতে। কোম্পানিটিতে বিদেশিদের অংশ মোট শেয়ারের শূন্য দশমিক ৪৪ শতাংশ বেড়ে ১২ দশমিক ১৮ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। শূন্য দশমিক ৪২ শতাংশ বেড়ে বেক্সিমকো ফার্মায় এদের শেয়ারের অংশ মোটের ৪১ দশমিক ১৪ শতাংশ হয়েছে।

একইভাবে সিটি ব্যাংকে বিদেশিদের অংশ শূন্য দশমিক ৩৭ শতাংশ বেড়ে ১৯ দশমিক ০৮ শতাংশ, সিঙ্গার বাংলাদেশে শূন্য দশমিক ২১ শতাংশ বেড়ে শূন্য দশমিক ৯১ শতাংশ, গ্লাক্সোস্মিথ ক্লাইনে শূন্য দশমিক ১৬ শতাংশ বেড়ে শূন্য দশমিক ৮৭ শতাংশ হয়েছে।

শেয়ার কমেছে :ইসলামী ব্যাংকের পর যে কোম্পানি থেকে বিদেশিরা বিনিয়োগ প্রত্যাহার করেছে সবচেয়ে বেশি সেটি হলো, বিএসআরএম লিমিটেড। এ কোম্পানিতে বিদেশিদের অংশ মোট শেয়ারের ১ দশমিক ৮২ শতাংশ কমে ২৪ শতাংশের নিচে নেমেছে। ব্র্যাক ব্যাংক থেকে শূন্য দশমিক ৭৯ শতাংশ কমে ৪০ শতাংশ হয়েছে। একমি ল্যাবে শূন্য দশমিক ৫৮ শতাংশ কমে ২ দশমিক ৯৬ শতাংশ হয়েছে।

সার্বিক অবস্থা :পর্যালোচনায় আরও দেখা গেছে, এপ্রিলে বিনিয়োগ কমায় তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোতে বিদেশিদের অংশও কমেছে। তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানি থেকে বিদেশিদের শেয়ার কমেছে প্রায় পাঁচ কোটি। টাকার অঙ্কে পরিশোধিত মূলধনে বিদেশিদের অংশ ৪৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা কমে ২ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকায় নেমেছে, যা তালিকাভুক্ত সব কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের ৪ দশমিক ১৯ শতাংশ।

অর্থকাল/এসএ/খান

Development by: webnewsdesign.com