ব্রেকিং

x

বিশ্বব্যাপী করোনার প্রভাবে প্রায় সব পোশাক কারখানার রপ্তানি আদেশ বাতিল

মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ ২০২০ | ৭:৪৯ পূর্বাহ্ণ | 77 বার

বিশ্বব্যাপী করোনার প্রভাবে প্রায় সব পোশাক কারখানার রপ্তানি আদেশ বাতিল
ছবি- অনলাইন

বিশ্বব্যাপী করোনার প্রভাবে অচল অবস্থা তৈরি হয়েছে দেশের পোশাক খাতে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, প্রায় সব রপ্তানি আদেশ বাতিল করেছে বিদেশি ক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো। এ মুহূর্তে বাতিলের শিকার পোশাকের মূল্য আড়াই বিলিয়ন ডলার।

টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ প্রায় ২১ হাজার ২৫০ কোটি টাকা। প্রতি মাসে গড়ে এই পরিমাণ মূল্যের পোশাক রপ্তানি হয়ে থাকে। দু-একটি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান রপ্তানি আদেশ বাতিল করেনি। এই ক্রেতাদের পোশাকই এখন উৎপাদনের শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এগুলো বাদ দিলে বাকি কোনো কারখানায় এখন আর কাজ নেই। নতুন কোনো রপ্তানি আদেশও নেই। যে কোনো সময় যে কোনো কারখানা বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

তবে এখনই সাংগঠনিকভাবে কারখানা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন। তার নির্দেশনা অনুযায়ী এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পোশাক খাতের দুই সংগঠন বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

পোশাক খাতের এই দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে সব ব্র্যান্ড এবং ক্রেতাদের কাছে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক। এখন মূল্য পরিশোধ করতে হবে না, পরে মূল্য পরিশোধ করলেও চলবে। তবুও উৎপাদিত পোশাকগুলো নেওয়া হোক- এ রকম অনুরোধ জানানো হয়েছে ই-মেইল বার্তায়। না হলে এ রকম বৈশ্বিক এই বিপদের মুহূর্তে ভাগ্যহত পোশাক শ্রমিক এবং তাদের পরিবার মানবিক সংকটে পড়বে। রপ্তানি আদেশ বাতিল না করে এই বিপদের মুহূর্তে একসঙ্গে মিলেমিশে কাজ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

ইউরোপের সবচেয়ে বড় বাজার জার্মানির আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক সহযোগিতাবিষয়ক মন্ত্রী গার্ড মুলারকে চিঠি লিখেছেন ড. রুবানা হক। তার দেশের ব্র্র্যান্ড এবং ক্রেতাদের এ বিষয়টি বোঝানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে চিঠিতে। একই চিঠি সংশ্নিষ্ট সব দেশের দায়িত্বশীল ব্যক্তিকে পাঠানো হবে। ঢাকায় রাষ্ট্রদূতদের কাছেও এ ব্যাপারে সহযোগিতা চাওয়া হবে।

উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করার চেষ্টা করছেন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ নেতারা। আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আজ এ বৈঠক হওয়ার কথা।

একাধিক উদ্যোক্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সিদ্ধান্ত এখনও বহাল আছে। এদিকে গতকাল সচিবালয়ে জরুরি বৈঠকে ১০ দিন সাধারণ ছুটির সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে বলা হয়েছে, সরকারের এই সিদ্ধান্তের বাইরে থাকবে পোশাক কারখানা।

এ মুহূর্তে আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য সবাইকে অনুরোধ করেছেন বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক। সমকালের সঙ্গে এক প্রতিক্রিয়ায় শ্রমিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, কোনো শ্রমিকের বেতন, বোনাস নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না।

বেতনের সময় বেতন পাবেন শ্রমিকরা। এ ব্যাপারে সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের আশ্বাস রয়েছে। তিনি শ্রমিকদের উদ্দেশে আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর ভরসা রাখুন। যতদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের সঙ্গে আছেন ততদিন আমরা কেউ পানিতে পড়ব না। রুবানা হক বলেন, ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে আছে পোশাক খাত। ক্রেতারা এক মৌসুমের পোশাক অন্য মৌসুমে নেবে। সেটাও বলছে না।

জার্মানের ওই মন্ত্রীর কাছে চিঠিতে বিজিএমইএ সভাপতি আরও বলেন, করোনার মতো বৈশ্বিক সমস্যায় জার্মানির প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তাদের সরকারের কাছে সহযোগিতা পাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদের জন্য এটা অস্তিত্বের সংকট। কারণ, যে কোনো অবস্থায় শ্রমিকদের টিকিয়ে রাখতে হবে। জার্মানির যে ব্র্যান্ড এবং খুচরা ক্রেতা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ থেকে পোশাক আমদানি করে তাদের একটা তালিকাও দেওয়া হয়েছে মন্ত্রীকে। এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় ইউটিউবে পৃথক এক ভিডিও বার্তায় ড. রুবানা হক বিদেশি ক্রেতাদের উদ্দেশে একই অনুরোধ জানান।

সূত্র জানায়, কারখানা খোলা থাকবে কিনা- সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণের পর। প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের দিকনির্দেশনার ভিত্তিতে কারখানার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এর বাইরে কারখানায় কাজের পরিস্থিতিসহ সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে করণীয় ভাবছে। গতকাল বিকেলে বিকেএমইএর এক জরুরি বৈঠকে কাল পর্যন্ত সাংগঠনিক কোনো সিদ্ধান্ত না নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে কোনো কারখানা এ ব্যাপারে নিজস্ব সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

সরকার এবং বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএর অপেক্ষায় না থেকে কিছু কিছু কারখানা বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। সাভারের হেমায়েতপুরে দীপ্ত অ্যাপারেল এবং রাজফুলবাড়িয়া এলাকার ডার্ড গার্মেন্ট নামে দুটি কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে এ পর্যন্ত বন্ধ কারখানার মোট সংখ্যা জানা সম্ভব হয়নি।

Development by: webnewsdesign.com