ব্রেকিং

x

লকডাউন শিথিল হলেও দিন দিন বাড়ছে করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড

শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১ | ৮:১৬ অপরাহ্ণ |

লকডাউন শিথিল হলেও দিন দিন বাড়ছে করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড
ছবি: সংগৃহীত

আগামী ১০ আগস্ট এর পর থেকে লকডাউন শিথিল করার কথা থাকলেও বর্তমান সময়ে লকডাউন চলছে সম্পূর্ণ ঢিলেঢালাভাবে। রাজধানী ঢাকার মহাসড়কগুলোতে বেড়েছে যাত্রীর চাপ। আবারো ব্যস্ত নগরী তে পরিণত হয়েছে রাজধানী ঢাকা। অথচ দিন দিন করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড বাড়ছে অপরদিকে মৃত্যু রেকর্ডের তুলনায় যে পরিমাণ স্বাস্থ্য সচেতনতা অবলম্বন করা দরকার,সে পরিমাণ স্বাস্থ্য সচেতনতা তা লক্ষ্য করা যায়নি রাজধানী ঢাকাতে।

এদিকে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাস এর মৃত্যুর সংখ্যা।
গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৪৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২২ হাজার ১৫০ জনের।

নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১২ হাজার ৬০৬ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৩৫ হাজার ২৬০ জন। মৃত ২৪৮ জনের মধ্যে পুরুষ ১৩৮ জন ও ১১০ জন নারী।

শুক্রবার (৬ আগস্ট) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাছিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১৫ হাজার ৪৯৪ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১১ লাখ ৭২ হাজার ৪৩৭ জন। সারাদেশে সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭০৭টি ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে আরটি-পিসিআর ল্যাব ১৩৩টি, জিন এক্সপার্ট ৫৩টি, র্যাপিড অ্যান্টিজেন ৫২১টি। এসব ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ৪৮ হাজার ৮০৮টি। মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৪৮ হাজার ১৫টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৮০ লাখ ৪৩ হাজার ৬৯৩টি।

এতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ২৬ দশমিক ২৫ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৬০ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৭ দশমিক ৮১ এবং শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় মৃত ২৪৮ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে রয়েছেন ৬৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৭৫ জন, রাজশাহী বিভাগে ১৬ জন, খুলনা বিভাগে ৩৬ জন, বরিশাল বিভাগে ২০ জন, সিলেট বিভাগে ১৬ জন, রংপুর বিভাগে ৮ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ৮ জন। এদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন ২০৯ জন, বেসরকারি ৩৩ হাসপাতালে জন এবং বাড়িতে ছয় জন।

মৃতদের বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে সাত জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৯ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩২ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৬২ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৭২ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৩৯ জন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ১৫ জন এবং ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে ২ জন রয়েছেন।

এতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে এসেছেন তিন হাজার ৭৪৪ জন ও আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন তিন হাজার ৮৯ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে এসেছেন তিন লাখ ১৯ হাজার ৮১ জন। আইসোলেশন থেকে ছাড়পত্র নিয়েছেন দুই লাখ ৩০ হাজার ৬৩ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৮৯ হাজার ১৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা ভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্তের হার বাড়তে থাকে।

Development by: webnewsdesign.com