ব্রেকিং

x

লিওঁকে হারিয়ে ফাইনালে বায়ার্ন

শুক্রবার, ২১ আগস্ট ২০২০ | ৫:২৯ অপরাহ্ণ | 53 বার

লিওঁকে হারিয়ে ফাইনালে বায়ার্ন
ফাইল ছবি

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মজাই হচ্ছে অঘটনে। কোন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে দেখা যায় পুচকে দলের কাছে হেরে বসে হেভিওয়েট কোন দল। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় সেমি ফাইনালে সেরকম কোন অঘটন ঘটতে দেয়নি বায়ার্ন মিউনিখ। বুধবার লিসবনে অলিম্পিক লিওঁকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে জার্মান জায়ান্টরা। আগামী সোমবার ফাইনালে তাদের প্রতিপক্ষ পিএসজি।

শক্তি, সামর্থ্য ও পরিসংখ্যানে লিওঁর চেয়ে বহু গুণ এগিয়ে বায়ার্ন। তার ওপর কোয়াটার ফাইনালে মেসিদের বার্সেলোনাকে বিধ্বস্ত করে নিজের দানবিক রূপ ভালোভাবেই দেখিয়েছে জার্মান এই দলটি। তবু অনিশ্চয়তা থেকেই যায়। কিন্তু জায়ন্ট বধে লিওঁও কম যায়নি। সেমিতে আসার আগে শেষ ষোলতে তারা বিদায় করেছিল ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জুভেন্টাসকে। আর কোয়ার্টার ফাইনালে বধ করেছিল ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার সিটিকে।

ফলে অঘটন না হোক অন্তত একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ ম্যাচ আশা করেছিল ফুটবল প্রেমিরা। কিন্তু বায়ার্নের দাপটে আজ সেরকম কিছু দেখা যায়নি। লিওঁকে হেসে-খেলেই হারিয়েছে তারা। দলের হয়ে জোড়া গোল করেছেন সের্গে জিনাব্রি। বাকি গোলটি করেছেন রবের্ত লেভানদোভস্কি

এদিন ম্যাচের শুরুকে আক্রমনাত্মক ফুটবলই খেলেছে লিওঁ। প্রথম ১৫ মিনিট বায়ার্নকে ভালোই চাপে রাখে তারা। পেয়েছে বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগও। কিন্তু ফিনিশিংয়ের ব্যর্থতার কারণে গোল অধরাই থেকে যায় শেষ পর্যন্ত।

তবে পাল্টা আক্রমণে যেতে খুব বেশি সময় নেয়নি বায়ার্ন। ম্যাচের ১৮ মিনিটে জিনাব্রির দারুণ এক গোলে এগিয়ে যায় তারা। মাঝমাঠ থেকে পাওয় লম্বা পাস প্রতিপক্ষে বেশ কয়েকজনকে কাটিয়ে ডি বক্সের মুখ থেকে দারুণ শটে গোল করেন জার্মান এই মিডফিল্ডার। ম্যাচের ৩৩ মিনিটে জিনাব্রির গোলেই ব্যবধান দ্বিগুণ করে বায়ার্ন। তবে গোলটি আসতে পারতো লেভানদোভস্কি পা থেকে। তার ব্যর্থ শট লিওঁর গোলকিপারের ঠেকিয়ে দিলে বল পেয়ে যান জিনাব্রি। তার তা থেকে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন তিনি। এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এটি তার নবম গোল।

ম্যাচের ৩৮ মিনিটে গোলের আরেকটি সহজ সুযোগ পেয়েছিলেন লেভানদোভস্কি। সেটিও কাজে লাগাতে পারেননি এবারের আসরের সর্বোচ্চ গোল দাতা। তবে ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে, অর্থাৎ ৮৮ মিনিটে অবশেষে গোলের দেখা পান লেভানদোভস্কি। তার গোলেই ব্যবধান ৩-০তে গিয়ে ঠেকে। আসরে মোট ১৫ গোল করেছেন তিনি।

Development by: webnewsdesign.com