ব্রেকিং

x

লিটনে জয়ের পুঁজি পেল বাংলাদেশ

শুক্রবার, ১৬ জুলাই ২০২১ | ৬:১২ অপরাহ্ণ |

লিটনে জয়ের পুঁজি পেল বাংলাদেশ
ছবি: সংগৃহীত

ইংল্যান্ডের মতো মেঘাচ্ছন্ন দিনের সুইং-ভরা কন্ডিশন নয়। নিউজিল্যান্ডের মতো বাতাসও নেই। তবে শীতের প্রকোপটা ভালোই আছে জিম্বাবুয়েতে। সকালে শুরু হওয়া ম্যাচে আগে ব্যাটিং কঠিন হবে, সেটা ম্যাচের আগের দিনই বলেছিলেন অধিনায়ক তামিম ইকবাল। আজ টসের সময়ও বলেছেন। টসে জিতলে তিনিও ফিল্ডিং নিতেন, এমন জানিয়ে এটাও বলেছে শুধু শুরুর সময়টা কাটানোর অপেক্ষা। তবে সে অপেক্ষাটাই করতে পারলেন না তাঁরা। বাজে শটের মহড়ায় বাংলাদেশ হারিয়ে ফেলল দ্রুত উইকেট।

এরপরও যে ৯ উইকেটে ২৭৬ রান পর্যন্ত গেল বাংলাদেশ, তাতে মূল অবদান লিটন দাসের ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরির। ৭৪ রানে ৪ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে গড়েছেন ৯৩ রানের জুটি, এরপর আফিফ হোসেনের সঙ্গে তাঁর জুটিতে উঠেছিল ৪০ রান। শেষদিকে আফিফ-মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে ৪২ বলে ৫৮ রানের জুটিতে শেষ পর্যন্ত ভালো একটা স্কোরই পেয়েছে বাংলাদেশ।

হারারেতে এর আগে একবারই এত রান তাড়া করে জিতেছিল জিম্বাবুয়ে। ২০১৫ সালে নিউজিল্যান্ডের ৩০৩ রান তারা পেরিয়ে গিয়েছিল এক ওভার ও ৭ উইকেট বাকি রেখেই। তবে সে রান তাড়ায় যে পাঁচজন ব্যাটিং করেছিলেন, তাঁদের কেউই নেই এ ম্যাচে। ওই ম্যাচের পর এখন পর্যন্ত ওয়ানডেতে আর একবার তিন শ রানের বেশি তাড়া করে জিতেছিল জিম্বাবুয়ে, ২০১৭ সালে গলে। শ্রীলঙ্কার ৩১৬ রান তারা পেরিয়েছিল ১৪ বল ও ৬ উইকেট বাকি রেখেই।

সে স্মৃতি ফিরে আসবে কিনা, সেটি সময়ের অপেক্ষা হলেও এদিন সকালের স্মৃতিটা জিম্বাবুয়ের জন্য ছিল দারুণ। বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানদের যাওয়া-আসার শুরুটা হয়েছিল তামিমকে দিয়ে। ব্লেসিং মুজারাবানির বাড়তি বাউন্সের বলে ব্যাট চালিয়ে কট-বিহাইন্ড হয়েছেন রানের কলামে কোনো কিছু যোগ না করেই। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৩৪তম বার শূন্যতে আউট হলেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে যা সর্বোচ্চ।

তিনে আসা সাকিব আল হাসান খেলেছেন ২৫ বলে, তবে ঠিক স্বস্তিতে ছিলেন না। প্রিয় কাট শটই বিপদ ডেকে এনেছে তাঁর, মুজারাবানির দ্বিতীয় শিকার হওয়ার আগে করেছেন ১৯ রান। মোহাম্মদ মিঠুন ছিলেন কিছুক্ষণ, তবে হুট করে অস্থির হয়ে পড়ার রোগ দেখা দিয়েছে তাঁর। সমানসংখ্যক বলে ১৯ রান করার পর টেন্ডাই চাতারার বেরিয়ে যাওয়া বলে ব্যাট চালিয়েছেন, ধরা পড়েছেন উইকেটকিপার রেজিস চাকাভার হাতে। মিঠুনকে অনুসরণ করেছেন মোসাদ্দেক হোসেনও। এবার অবশ্য বোলার ছিলেন রিচার্ড এনগারাভা। তবে মোসাদ্দেকও আউট হয়েছেন ওই বাইরের বলে কাট করতে গিয়েই।

একমাত্র টেস্টের মতো প্রথম ওয়ানডেতেও তাই ফিরে এল দ্রুত অলআউট হয়ে যাওয়ার শঙ্কা। সেটি কেটেছে লিটনের ব্যাটেই। এ ম্যাচ দিয়েই একাদশে ফিরেছেন, বাজে ফর্মের কারণে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বশেষ সিরিজের শেষ ম্যাচে বাদ পড়েছিলেন। টেস্টে যে কাজটা করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ, ওয়ানডেতে ফেরার ম্যাচে সেঞ্চুরি করে সেটিরই পুনরাবৃত্তি করলেন লিটন।

শুরুতে অবশ্য বেশ সতর্ক ছিলেন লিটন। ৭৮ বলে ফিফটি পূর্ণ করেছিলেন। তবে সেঞ্চুরি পেয়ে গেছেন ১১০ বলে। এরপর বেশিক্ষণ টেকেননি। রিচার্ড এনগারাভার বলে খেলা পুল শটে টাইমিং করতে না পেরে ১১৪ বলে ১০২ রান করে মিড উইকেটে ওয়েলিংটন মাসাকাদজার হাতে ক্যাচ দিয়েছেন। মাহমুদউল্লাহ ফিরেছেন লিটনের আগেই। লুক জঙ্গুয়ের ধীর গতির বাউন্সারে পুল করতে গিয়ে গ্লাভে বল লাগিয়ে চাকাভার হাতে ধরা পড়ার আগে করেছেন ৫২ বলে ৩৩ রান।

বাংলাদেশের এরপর প্রয়োজন ছিল দ্রুতগতির রান। সেটি করেছেন আফিফ। সঙ্গ পেয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজের। দুজনের সপ্তম উইকেট জুটিতে ৫৮ রান উঠেছে ৪২ বলে। দুজন ফিরেছেন পরপর দুই বলে—২৫ বলে ২৬ রান করে জঙ্গুয়ের বলে কাভারে ক্যাচ দিয়েছেন মিরাজ, আফিফ বোল্ড হয়েছেন স্কুপ করতে গিয়ে। আফিফ ইনিংসে মেরেছেন ১ চার ও ২ ছয়।

টেস্টের মতো এবারও তাই হ্যাটট্রিক বলের সামনে পড়ে গেলেন তাসকিন। হ্যাটট্রিক বলটায় জঙ্গুয়ে ওয়াইড দিয়ে বসেছিলেন। তবে এক বল পর রান-আউট তাসকিন। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন এরপর করেছেন ৬ বলে ৮ রান। শেষ ১০ ওভারে বাংলাদেশ তুলেছে ৭৭ রান।

Development by: webnewsdesign.com