ব্রেকিং

x

শিশুদের দেশপ্রেম বাড়াতে গৌরবের ইতিহাস জানানোর তাগাদা

শনিবার, ২৬ মার্চ ২০২২ | ৯:১১ অপরাহ্ণ |

শিশুদের দেশপ্রেম বাড়াতে গৌরবের ইতিহাস জানানোর তাগাদা
সংগৃহীত ছবি

শিশুদের জন্য রাষ্ট্র বিভিন্ন আয়োজন করলে শিশুদেরও রাষ্ট্রের প্রতি দায়িত্ববোধ তৈরি হয় বলে জানিয়েছেন শিক্ষাবিদ মুহাম্মদ জাফর ইকবাল। তিনি আরও মনে করেন, শিশুদের যত বেশি মুক্তিযুদ্ধ ও দেশের গৌরবের ইতিহাস জানানো হবে, ততই দেশপ্রেম তৈরি হবে।

শনিবার সকালে রাজধানীর মহাখালী টিএন্ডটি মাঠে, ঢাকা উত্তর সিটির মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে দিনব্যাপী আনন্দ মেলায় উপস্থিত হয়ে এসব কথা জানান তিনি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলামও।

শিশুরা আনন্দে আনন্দে বঙ্গবন্ধুকে জানবে এই লক্ষ্যেই শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে দু’দিনব্যাপী আনন্দমেলা এবং বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সম্পর্কিত উন্মুক্ত তথ্যচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করে ডিএনসিসি। মেলায় শিশুরা মোড়গের লড়াই, বিস্কুট দৌড় ও কানামাছি খেলায় অংশগ্রহণ করে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষাবিদ ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, আমরা আজ ২৬ মার্চে যে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন করছি এই স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তোমরা বঙ্গবন্ধুর নামটি সবসময় মনে রাখবে, বঙ্গবন্ধুকে জানবে।

তিনি বলেন, ওরা যখন জানবে এই রাষ্ট্র, দেশ তাদের ভালোবাসে, তাদের সুন্দর জীবনের জন্য চেষ্টা করে, তখন স্বাভাবিকভাবেই দেশের প্রতি শিশুদের মায়া জন্মাবে। এতে আজকের শিশুরা কোনো স্বার্থ ছাড়াই দেশের কল্যাণে কাজ করবে। একদিন ওরাই হবে দেশের গর্ব।

জয় বাংলা স্লোগান আর দেশের গানে শিশুদের সঙ্গে যেন একাকার হয়ে যান অতিথি ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল এবং ঢাকা উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলামও। বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করার পাশাপাশি নাগরদোলায় চড়ে শিশুদের সঙ্গে স্বাধীনতার সুখ ভাগাভাগি করে নেন তারা। ঘুরে দেখেন মেলার বিভিন্ন অনুষঙ্গ। শিশুদের আনন্দমেলায় পরিণত হয় বনানী মাঠ।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, সোনার বাংলা গড়তে সোনার মানুষ দরকার। আজকের এই সোনার শিশুরাই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন না হলে, পাকিস্তানের মতো ব্যর্থ রাষ্ট্রের দায় কাঁধে নিয়ে ঘুরতে হতো। আমরা পাকিস্তানের চেয়ে প্রতিটি খাতে এগিয়ে।

স্বয়ং পাকিস্তানের মানুষ বলে পাকিস্তানকে বাংলাদেশ বানিয়ে দিতে৷ আমাদের মনে রাখতে হবে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন রাজনৈতিক মুক্তি বঙ্গবন্ধুকন্যা দিয়েছেন অর্থনৈতিক মুক্তি।

টিএন্ডটি মাঠের আনন্দ মেলা ও চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন শেষে মেয়র ডিএনসিসির প্রধান কার্যালয় নগর ভবনে ডিএনসিসির সব কর্মকর্তা ও কাউন্সিলরদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

Development by: webnewsdesign.com