ব্রেকিং

x

সালাহ-মানের গোলে শেষ আটের পথে লিভারপুল

বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ৮:৫৯ পূর্বাহ্ণ |

সালাহ-মানের গোলে শেষ আটের পথে লিভারপুল
সংগৃহীত ছবি

শেষ কিছুদিনে ফর্মটা পক্ষে কথা বলছিল না লিভারপুলের। এ কারণেই ধারে ভারে এগিয়ে থেকেও বুন্ডেসলিগা শিরোপার দৌড়ে থাকা রাজেন বলস্পোর্ট লাইপজিগের বিপক্ষে ম্যাচের আগে কিছুটা চাপেই ছিল ইংলিশ চ্যাম্পিয়নরা। তবে মোহামেদ সালাহ আর সাদিও মানের গোলে ২-০ ব্যবধানে জিতে সে চাপটা উড়িয়ে দিয়েছে। শেষ আটের পথে বড় একধাপ এগিয়েও গিয়েছে কোচ ইয়ুর্গেন ক্লপের শিষ্যরা।

ম্যাচটি মূলত লাইপজিগের রেড বুল অ্যারেনায় অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও জার্মানির নতুন করোনা নীতির কারণে ভেন্যু সরিয়ে নিতে বাধ্য হয় উয়েফা। নতুন ধরনের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ১৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত যুক্তরাজ্যসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে আগতদের জার্মানি প্রবেশে কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করে দেশটির প্রশাসন। ফলে হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে পুসকাস অ্যারেনায় সরিয়ে নেওয়া হয় ম্যাচটি।

বুধবার রাতের এই ম্যাচে লাইপজিগ এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল ম্যাচের ৫ মিনিটেই। সেটা যে গোলে রূপ নেয়নি শেষমেশ তাতে কোচ জুলিয়ান নাগেলসমানের শিষ্যরা দুষতে পারে নিজেদের ভাগ্যকে। বাম পাশ দিয়ে আক্রমণে উঠে আসা অ্যাঞ্জেলিনোর ক্রসে দানি অলমোর করা ডাইভিং হেডার গিয়ে প্রতিহত হয় গোলপোস্টে।

লিভারপুল এরপরই নিজেদের গুছিয়ে নিতে শুরু করে। ১৪ মিনিটে এর ফল পেতে পেতেও পায়নি ক্লপের দল। ট্রেন্ট অ্যালেকজান্ডার-আর্নল্ডের পাস থেকে বল পেয়ে প্রতিপক্ষ বিপদসীমায় সালাহ শট নেন, দারুণ এক সেভে লাইপজিগকে পিছিয়ে পড়ার হাত থেকে রক্ষা করেন গোলরক্ষক পিটার গুলাশি। মিনিট দশেক পর রবার্তো ফিরমিনোর ক্রসে সুযোগ পান মানে। কিন্তু তার হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে সে যাত্রায় গোলবঞ্চিত থাকে অল রেডরা।

৩২ মিনিটে প্রতিপক্ষের ভুলে আবারও লিভারপুল সুযোগ পায়। বল বিপদমক্ত করতে নিজেদের বিপদসীমা ছেড়ে বেরিয়ে এসে লাইপজিগ গোলরক্ষক বল তুলে দেন অ্যান্ড্রু রবার্টসনের পায়ে। ফাঁকা পোস্ট পেয়ে অনেকটা দূর থেকেই চেষ্টা করেছিলেন লিভারপুল লেফটব্যাক।

তবে তার চেষ্টাটিও লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। এরপর অবশ্য লিভারপুল একবার লক্ষ্যভেদ করেছিল ফিরমিনোর কল্যাণে। কিন্তু তবে তা ‘গোল’ হয়নি, কারণ যোগান দেয়ার আগে বলটি চলে গিয়েছিল বাইলাইনের বাইরে। ফলে গোলশূন্যতায় শেষ হয় প্রথমার্ধ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল লাইপজিগই। সে যাত্রায় অল রেডরা রক্ষা পায় গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকারের কল্যাণে। অলমোর বাড়ানো বলে ক্রিস্তোফার এনকুনকুর শট টি ঠেকান ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক।

৫৩তম মিনিটে অমার্জনীয় ভুল করে বসে লাইপজিগ। মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিতজারের ব্যাকপাস সোজা গিয়ে পড়ে সালাহর পায়ে। এরপর গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে জালে পাঠাতে ভুল করেননি সালাহ। এর মিনিট পাঁচেক পর আবারও ভুল করে বসে জার্মান দলটি। কুরতিস জোন্সের বল বিপদমুক্ত করার চেষ্টায় ব্যর্থ হন নর্দি মুকিয়েলে। বল পেয়ে যাওয়া মানে এরপর লিভারপুলের ব্যবধান দ্বিগুণ করেন।

এমন দুই ভুলের পর আর যাই হোক ম্যাচ জেতা চলে না, যদি না কেউ অতিমানবীয় কিছু করে বসেন। লাইপজিগের কেউ অতিমানবীয় কিছু তো করতে পারেইনি, উল্টো দারুণ এক সুযোগ নষ্ট করেছে ম্যাচের অন্তিম সময়ে। টাইলার অ্যাডামসের পাস থেকে হুয়াং হি চ্যানের শটটি বেরিয়ে যায় গোলপোস্টের একটু বাইরে দিয়ে। ফলে লিভারপুল মাঠ ছাড়ে ২-০ গোলের জয় নিয়েই।

Development by: webnewsdesign.com